ব্লগে পাঠক সংখ্যার চেয়ে পাঠকের মান বেশি গুরুত্বপূর্ণ

গনতান্ত্রিক দেশে প্রত্যেকের একটি করে ভোট এবং সবাই সমান – এই কথাটি শোনা যায়। কোন একটি ব্লগে পোস্ট করলেও একই বেপার। কার পোস্টে কত ভিজিটর এসেছে এর উপরে অনেকে সেরা লেখক নির্বাচিত হতে পারে। আবার কার পোস্টটি নিয়ে বেশি আলোচনা করা হয়েছে সেটাও হতে পারে সেরা পোস্টে মানদন্ড। ইদানিং ব্লগের আরো একটি মানদ্ন্ড চালু হয়েছে তা হলো ব্লগটিতে  কতজনে লাইক বা কতজনে শেয়ার বা স্টার ভোট করেছে।

আপনি কি কখনো রচনা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছেন? যদি অংশ গ্রহণ করে থাকেন তাহলে শেখানকার একটি ভিন্ন ব্যাপার দেখবেন। রচনাগুলো নির্দিষ্ট কয়েকজন যাচাই করে তার পরে মার্ক দিয়ে থাকেন। শেষে সবচেয়ে ভাল মানের লেখাটিই সেরা পুরস্কার পায়। মজার ব্যাপার হলো সেরা পোস্ট নির্বাচনের ক্ষেত্রে এই বিষয়টি এখন উঠে গেছে। সোসিয়াল মিডিয়াপ্রবণ দুনিয়াতে তুলনামূলক বিষয়গুলোই মানডন্ড হয়।

আপনার যদি একটি ব্লগ থাকে আর সেটি যদি টাকা আয় করার উদ্দেশ্য করে থাকেন তাহলে সেটা পাঠক সংখ্যা দেখবেন না। দেখতে যাবেন না পোস্ট শেয়ার বা কমেন্টের সংখ্যা। দেখবেন পোস্টটি পড়ে কতজন বিজ্ঞাপনে ক্লিক করেছে বা পণ্য/সেবা গ্রহণ করেছে। এর থেকে আপনার কত টাকা আয় হয়েছে।

আর এজন্য একটি ব্লগ থেকে টাকা পাওয়ার জন্য অন্যতম নিয়ামক ব্লগের পাঠক কারা? তাদের চাহিদা কি? তাদের সামর্থই বা কি? তারা কি পণ্য বা সেবা গ্রহণ করবে? – এই ব্যাপারগুলো। আর এই ব্যাপারগুলো যে পাঠকসংখ্যার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে তার বেশ কিছু নমুনা বর্ণনা করি।

(১) প্রথমে আমার ওয়েবসাইট টিউটোরিয়ালবিডির কথায় আসি, টিউটোরিয়ালবিডি মোটামুটি জনপ্রিয় একটি ওয়েবসাইট। এখানে শিক্ষামূলক কনটেন্ট বেশি থাকে। আর এখানে ওয়েব ডিজাইনের উপরে অনেক বেশি বিষয় লেখা আছে। আর তাই এখানে ওয়েবসাইট বানানো শিখছে বা ওয়েব ডিজাইনার ভিজিটর ও প্রযুক্তিপ্রেমী লোকের ভিড় বেশি। আর তাই বিগত দিনগুলোতে এখান থেকে আমি অনেক টাকার ওয়েব হোস্টিং এবং ডোমেইন বিক্রি করতে পেরেছি যা দিয়ে টিউটোহোস্টের মতো প্রতিষ্ঠান জন্ম নিয়েছে। এর চেয়ে বেশি ভিজিটরের ওয়েবসাইট থেকেও এরকম ফিডব্যাক অনেকে বের করতে পারে নি।

(২) ভিজিটর কে এবং সেই ভিজিটরের চাহিদা কি-এই তথ্য ওয়েব জায়ান্টদের কাছেও বেশ গুরুত্বপূর্ণ। আর এ কারনেই আপনার আইফোনের মাধ্যমে এপল, আপনার এন্ড্রয়েড ফোনের মাধ্যমে গুগল আপনার অবস্থান ট্র্যাক করে সুনির্দিষ্ট বিজ্ঞাপন প্রদর্শণ করে। আপনার কুকি, যেখানে রয়েছে আপনার প্রিয় ওয়েবসাইট লিংক লিস্ট সেটা থেকে তথ্য নিয়েও তারা বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করছে। আর আপনি যে ওয়েবসাইট ভ্রমন করছেন সেই ওয়েবসাইটে যে পণ্যের বর্ণনা আছে আগামী সপ্তাহে হয়তো সেই পণ্যটিই কিনতে যাচ্ছেন, আর তাই সেই পন্যের কাছাকাছি বিজ্ঞাপনটি তারা আপনাকে দেখাচ্ছে।

(৩) বাংলাদেশে অনেকগুলো বাংলা ওয়েবসাইট আছে যেখানে অনেক বেশি ভিজিটর অথচ এডমিনদের হাতে টাকা নাই 🙁 । একই পরিমান ভিজিটরের একটি ইংরেজী ব্লগ হলে কি হতো? কমপক্ষে ১০ গুন আয় সম্ভব ছিল। বাংলাদেশের মতো দরিদ্র ভিজিটর যাদের প্রত্যেকের পে-পাল বা ক্রেডিট কার্ড নেই যে ক্লিক করেই একটি পন্য কিনে ফেলবে। এদেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠি ওয়েবে সাধারনতঃ যে ব্যয়বহুল পণ্যগুলো আছে তা ক্রয় ক্ষমতার বাইরে বসবাস করছে। আর ওয়েবে সহজ বিক্রয়যোগ্য পণ্যগুলো তারা ক্র্যাক ভার্শন জোগার করে অনায়াসে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে – কিনতে যাবে কোন দুঃখে?  এজন্য এদেশের ইরেজী ব্লগারদের অনেকে নিজদেশে নিজের ব্লগটির প্রচার পর্যন্ত করেন না। কারন এখানে প্রচার করে লাভের চেয়ে ক্ষতির সম্ভাবনা বেশি।

সুতরাং ভিজিটর কম, কমেন্ট কম এ নিয়ে খুব বেশি চিন্তা করার চেয়ে নিজের কনটেন্টের মান বৃদ্ধির বেপারে বেশি মন দেওয়া উত্তম।

বাংলা ব্লগে বা টিউটোরিয়ারবিডিতে আমি অবশ্য এর কোনটির জন্যই লিখি না, লিখতে ভাল লাগে তাই লিখি। আর এ জন্য পাঠক কম পেলেও খুব একটা ক্ষতি নেই। ভাল থাকবেন। আল্লাহ হাফেজ।