ওয়েব ডেভলপমেন্ট বিষয়ে হয়তবা আপনিও এটাই ভাবছেন!

ব্যক্তিগত, প্রাতিষ্ঠানিক বা সাংগাঠনিক প্রয়োজনেই হোক আর শখের বশেই হোক প্রতিদিনই জন্ম হচ্ছে নতুন নতুন ওয়েবসাইটের। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে চলেছে তথ্য প্রযুক্তি। তথ্য আদান প্রদান এবং সেইসাথে যোগাযোগের সরলতা এবং দ্রততা আধুনিকতার অন্যতম মাপকাঠি। বিশ্বের সকল প্রান্তেই তথ্য আদান প্রদান এবং যোগাযোগকে আরো দ্রুত, সহজ, নিরাপদ এবং শক্তিশালী করার জন্য প্রযুক্তিবিদ, বৈজ্ঞানিক এবং প্রোগ্রামারা দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন। প্রতিদিনই তারা উদ্ভাবন করছেন নতুন নতুন ধারণা; আর এধারণা গুলোকে সমন্বিত করে তৈরি করছেন নতুন প্রযুক্তি।

আধুনিক সমাজে তথ্যের গতিশীল প্রবাহ এবং যোগাযোগের প্রায় পুরোটাই নেটওয়ার্ক তথা ইন্টারনেট নির্ভর। বর্তমানে শিক্ষা, ব্যবস্যা-বানিজ্য, সংবাদ আদান-প্রদান, নিউজ মিডিয়া, টিভি মিডিয়া, সোস্যাল নেটওয়ার্ক, সাহিত্য-সংস্কৃতি এমনকি গল্প আড্ডা পর্যন্ত ইন্টারনেট নির্ভর হয়ে পড়ছে। আমাদের চাহিদা, সময়ের দাবি এবং আধুনিকতার সৃজনশীল প্রয়োগের জন্যই আমাদেরকে ওয়েব নির্ভর হতে হচ্ছে। আর এ সকল কর্মকান্ডের বাস্তবিক রূপ হচ্ছে ওয়েব সাইট যা আমাদের কার্যাবলী এবং প্রয়োজন মিটিয়ে চলেছে নিরবিচ্ছিন্নভাবে।

হ্যা আপনাকেই বলছি, হয়তবা দিশা্হীনভাবে ওয়েবে ঘুরাঘুরি করেই অনেক দিন কাটিয়ে দিলেন। এর মধ্যেই আপনি বুঝে গেছেন ওয়েব সাইট কি? কেন প্রয়োজন? ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভলপমেন্ট কি? ভবিষ্যতের ক্যারিয়ার হিসেবে এটাই হয়তবা আপরার জীবনের জন্য উপযোগী এবং নিরাপদ সেটাও হয়তবা অনুভব করতে শুরু করেছেন; কিন্তু বুঝতে পারছেন না কিভাবে শেখা শুরু করবেন? আবার এটাও ভাবছেন আপনি লেখাপড়া করেছেন নন টেকনিক্যাল বিষয়ের উপর অথবা কম্পিউটার বিজ্ঞান নিয়ে নয়, তাহলে আপনি কি এ বিষয়ের উপর খুব বেশি সফল হতে পারবেন?

আপনার উত্তরে বলছি, আপনি যদি যথাযথভাবে বুঝতে পারেন যে ওয়েব সাইট আমাদের বর্তমান সময়ে কতটা জরুরী তাহলে ক্যারিয়ার হিসেবে এ বিষয়টাকে বেছে নেয়ার ক্ষেত্রে কোন সন্ধেহের অবকাশ নেই। ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভলপমেন্ট একটা সৃজনশীল কাজ এখানে এডুকেশনাল ব্যাকগ্রাউন্ড কোন বিষয় নয় বরং আগ্রহ, ইচ্ছা, ধর্য্য, জানা এবং শেখার আকাংখ্যা, সৃজনশীলতা, দক্ষতা প্রমানের ইচ্ছা, স্বধীনভাবে কাজ করার ইচ্ছা, নতুন কিছু সৃষ্টির আকাংখ্যা ইত্যাদি বিষয়গুলো প্রধান নিয়ামক হিসেবে কাজ করে। তাই আপনি যদি নন টেকনিক্যাল বিষয়ের উপর লেখাপড়া করে থাকেন, কিন্তু আপনার মনে একজন ওয়েব ডেভলপার হওয়ার তিব্র আকাংখ্যা কাজ করে থাকে তাহলে, আপনার ইচ্ছাকে ধ্বংস না করে, আপনার উচিৎ এই ইচ্ছাটাকে মূল্য দেয়া এবং সেই লক্ষ পূরণের জন্য কাজ শুরু করা। আর যে কোন বিষয়ে সফলতা বিষয়টি নির্ভর করে ধর্য্য, পরিকল্পনা, লব্ধ জ্ঞানকে বাস্তবায়ন করার মাধ্যমে দক্ষতা প্রমান করা আর কর্তব্যকর্মে সৃজনশীলতার প্রকাশ ঘটানোর মাধ্যমে। তাই আপনার সাহস, সামর্থ এবং সফল হওয়ার তিব্র আকাংখ্যা অনুভব করেই অনুমান করে নিতে পারেন সফলতা এবং ব্যার্থতার পরিমান।

এখন কথা হচ্ছে সব কিছুই ঠিক আছে, শেখার জন্য উপযুক্ত উৎস এবং পরামর্শ কোথায় পাব? কিভাবে শেখা শুরু করব? সমস্যায় পড়লে কে সাহায্য করবে? আর আমার দক্ষতা প্রমান কিভাবে করব?

আপনাকে সর্বপ্রথমে নির্ধারণ করতে হবে আপনি কি কি বিষয় শিখতে চান? এরপর বিষয় গুলিকে গ্রেডিং করে শুরু থেকে শুরু করুন। আর যে কোন বিষয় শেখার জন্য ওয়েবে রিসোর্স তো আছেই। একটু Google এর সার্চ দিয়ে দেখুন কিছু পাওয়া যায় কি না। এতে করে আপনার সার্চিং পাওয়ার আস্তে আস্তে উন্নত হবে, সেই সাথে আরো কিছু নতুন বিষয়ের সাথে পরিচিত হতে পারবেন, যা আপনার চিন্তার জগৎটাকে প্রসারিত করবে। ওয়েব থেকে শেখার জন্য ভাল সার্চিং পাওয়ার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি প্রয়োজনীয় তথ্য সহজেই খুজেঁ বের করতে পারেন এবং আপনার আগ্রহের বিষয়ের উপর একটা ভাল সংগ্রহ তাকে তাহলে সহজেই শিখতে পারবেন।

ওয়েব ডেভলপমেন্ট শেখার জন্য ইংরেজিতে বেশ ভাল উৎস থাকলেও বাংলা ভাষায় তেমন নেই। এই বিষয়টি ইতোমধ্যেই টিউটোরিয়ালবিডি এর অঙ্গ সংগঠন টিউটোহোস্ট অনুধাবন করেছে, তারা ভাল এবং আন্তর্জাতিক মানের হোস্টিং সেবা প্রদানের পাশাপাশি, ওয়েব ডেভলপমেন্ট এর উপর বাংলা ভাষায় উপযুক্ত তথ্যভান্ডার তৈরির জন্য কাজ করে যাচ্ছে ইতোমধ্যেই তারা টিউটোরিয়ালবিডি এর মাধ্যমে একটা কমিউনিটি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে। যেখানে সাধারণ ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন বিষয় শিখে, তাদের মতামত প্রকাশ করতে পারে। এছাড়া টিউটোরিয়াল বিডি এর ফেসবুক ফ্যান পেজ এর মাধ্যমেও মতামত প্রকাশ করা যায় । টিউটোহোস্ট  এর রয়েছে একদল দক্ষ প্রোগ্রামার এবং কর্মী যারা ব্যবহারকারী এবং পাঠকদের সেবার জন্য সর্বদা অপেক্ষায় থাকে এবং তাদের প্রত্যাশা , জিজ্ঞাসা এবং পরামর্শকে গুরুত্ব সহকারে বিশ্লেষণ করে কার্যক্রম পরিচালনা করে এবং পরামর্শ প্রদান করে। তাই আপনারা সহজেই টিউটোহোস্ট এবং টিউটোরিয়ালবিডির মাধ্যমে শিখতে পারবেন এবং প্রয়োজনীয় পরামর্শ এবং সমাধান পাবেন।

এ ছাড়াও ইংরেজিতে ওয়েব ডেভলপমেন্ট বিষয়ে শেখার জন্য http://www.w3schools.com এবং http://tutsplus.com খুবই সহায়ক।

…………………………………………………………………………………..

আজ তাহলে এ পর্যন্তই। বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তিকে সঙ্গী করে শিক্ষা গ্রহণ বিতরণ এবং প্রচারের মাধ্যমে একসাথে কাজকরে দক্ষতা প্রমানের মাধ্যেমে গড়ে তুলি একটা সুখী সমৃদ্ধ পৃথিবী। সকলের জন্য শুভকামনা রইল

2 thoughts on “ওয়েব ডেভলপমেন্ট বিষয়ে হয়তবা আপনিও এটাই ভাবছেন!”

  1. অসীম কুমারের কথায় আমি একমত পোষণ করছি। কারণ আমি ঠিক এভাবেই সাফল্য পেয়েছি যদিও ঠিক এভাবে না। তবে ননটেকনিকাল মানুষও যে ওয়েব ডেভলপমেন্ট শিখতে পারে তার প্রমান আমি মাত্র ২ মাসে পেয়ে গেছি। তাই নতুনদের জন্য স্বাগত জানাই।

    1. আরিফুল ভাই জেনে খুশি হলাম আপনি সফলতা পেয়েছেন। আপনার জন্য শুভকামনা রইল, আরো এগিয়ে যান।

Comments are closed.