প্লেজারিজম নামক ব্যাধিকে এড়িয়ে চলার উপায়গুলো

বিজ্ঞান আর প্রযুক্তির হাত ধরে বুদ্ধিমত্তার বিচারে মানুষ হিসেবে আমরা এগিয়ে গেছি অনেকটা। আমাদের উদ্ভাবন ক্ষমতা আমাদের সবচেয়ে বড় সম্পদ এই যুগে। একটা নতুন আইডিয়া বা ভারচুয়াল জগতের কোনো কাজ মূহুর্তের মধ্যেই যেকোনো কারো জীবনকে পালটিয়ে দিচ্ছে এখন। আর তাই ইদানীং আইডিয়া বা নিজের কাজের নিরাপত্তার বিষয়গুলা সবাই গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে এখন। সেই লক্ষ্যেই প্লেজারিজম চেকিং-এর মত টুলসগুলো আজকের দুনিয়ায় প্রত্যেকটা ক্রিয়েটিভ মানুষের এত আপন।

PLAGIARISM checker

আজকে আমরা এই প্লেজারিজম-এর ভয়াবহ দিকগুলো এড়িয়ে চলার উপায় নিয়ে আলোচনা করবোঃ

১. প্রতিটি কাজে নিজস্বতা রাখার চেষ্টা করা,
২. সব সময় নতুন কিছু করা চেষ্টা করা,
৩. লেখনীতে নিজস্ব ধারা মেন্টেইন করা,
৪. অন্যদের আইডিয়া নিয়ে কথা বলার প্রয়োজন হলে, তাদের নাম ও কোথায় তাদের কাজ পাবলিশ হয়েছিল সেটা যথাযথ সম্মানের সাথে উল্লেখ্য করা,
৫. ফ্যাক্ট উল্লেখ্য করার সময় নিজস্ব রীতিতে বর্ণনা করা,
৬. তথ্য সংগ্রহ করার জন্য প্রয়োজন মাফিক সময় বিনিয়োগ করা,
৭. সর্বপরি, প্রত্যেকটা কাজের পর সেটার প্লেজারিজম চেক করা।

আগামী টিউনে এই বিষয়ে নিয়ে আরো বিস্তারিত লিখবো। এবং এই বিষয়ে কোনো প্রশ্ন থাকলে টিউমেন্টে জানিয়ে দিতে পারেন। আশা করি এই পোস্টটা আপনাদের ভাল লাগেছে। পরেরবার কি নিয়ে লিখতে পারি সে বিষয়ে কোনো সাজেশন থাকলে জানাতে পারেন। আজকের মত এই পর্যন্ত থাকুক। ধন্যবাদ।

সূত্রঃ PLAGIARISM CHECKER