ভবিষ্যতের জন্য বানানো অদ্ভুত ৭টি বাইক

প্রতি বছরই দৈনন্দিন চাহিদা পূরণের জন্য নতুন নতুন মডেলের মটর সাইকেল চলে আসে। তবে ভবিষ্যতের জন্যও চলে আসে দরুন ও অদ্ভুৎ কিছু বাইক।

আজব সব ফিচারের ৭ টি ভবিষ্যত মটর সাইকেল নিয়ে হাজির হয়েছি, আমি, যা দেখলে আপনি হয়তো আকাশ থেকে পরবেন।

  1. Akrapovic full moon concept

প্রথম দেখাতেই অবাক হওয়ার মতো বাইক এটি। ১৫২৪ সিসির ইঞ্জিনের বাইকটির নামকরণে রয়েছে তার চাকা ও এলুমুনিয়ামের ফ্রেমের রহস্য। ফ্রেম থেকে চাকাটি বের হলে Full moon এর মতো দেখায়। স্টিয়ারিং সম্পুর্ণ সয়ংক্রিয় এবং কোন ক্যাবল দেখা যায় না। এটি একটি কনসেপ্ট বাইক এবং বাস্তবে রাস্তায় করবে আসবে তা এখনো অজানা।

2. Yamaha motoroid

মানুষের মতো নিজের শরীর ব্যালেন্স রাখতে পারে ইয়ামাহা মটরয়েড। দারুন এই বাইকটি দেখতে সাইন্স ফিকশনের কল্পনার বাইকগুলোর মতোই মনে হবে। জানলে অবাক হবেন এটি এতো চালাক! হাতের ইশারায় চালু হবে বা থামবে। আপনার আঙ্গুলের ছাপ বা চেহারা চিনে রাখতে পারবে। বিশ্ব বিখ্যাত এই বাইকটি ডেভলপের জন্য শুধু অভিজ্ঞ ইঞ্জিয়ারই না, মনো বিজ্ঞানীরা নিয়োজিত ছিল।

3. BMW Vision Next 100

বিএমডব্লিউ ১০০ বছর পূর্তি উপলক্ষে নিয়ে আসে BMW Vision Next 100. আগামী ১০০ বছর পর কেমন হবে বিএমডব্লিউ গাড়ী তার উপর ভিত্তি করে ডিজাইন করা হয়েছে গাড়ীটি। এটির দারুন Self Balancing Technology একজন মানুষ বাইকের উপর দারানো অবস্থায় ব্যালেন্স রক্ষা করে। উপরে ওঠার বা নামার সময় বা উচ্চগতিতেও দারুন ব্যালেন্স রক্ষা করতে পারে এটি।

গাড়ী চালানোর সময় একটি গ্লাস পড়তে হবে চালককে যার চোখের নিরাপত্তার সাথে চালককে উপদেশ দিবে। চোখের ইশারায়ও গাড়ীটিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন গাড়ীটি।

এটা কিন্তু বিশ্ণয়কর ফিচার ছিল না আরো বিশ্ময়কর ফিচার হলো গাড়ীটি চালানোর সময় চালক উত্তেজিত হয়ে এলোমেলোভাবে চালাতে থাকলে গাড়ীটি নিজে গতি কমিয়ে দিবে এবং সেইফলি চলবে। তবে সবচেয়ে দুঃখের বিষয় এটি কবে বাজারে আসবে তা কেউ সঠিকভাবে বলতে পারে না, আরো উন্নত করে সম্ভবত ২০৩০ সালের আগে বাজারে আসতে পারে এই কনসেপ্ট বাইকটি।

4. Johammer J1

জোহ্যামার জে ওয়ান প্রথম বাইক যা দেখলে বেশ স্লিপি মনে হবে। প্লাস্টিক ও এলুমুনিয়ামের বডির ডিজাইনটি বেশ সহজ ও সুন্দর রাখা হয়েছে। ১৩ কিলোওয়াটের ব্যাটারী চার্জ হতে সময় লাগে আরাই ঘন্টা। ফুল চার্জে এটি ২০০ কিলোমিটার পর্যন্ত চলতে পারবে। সামনে কোন ইনস্ট্রুমেন্ট প্যানেল নাই, আয়নার নিচের অংশে এলইডি যুক্ত আছে সেখানেই গতি ও অন্যান্য তথ্যগুলো প্রদর্শিত হয়।

5. Honda riding Assist

নতুন নতুন প্রযুক্তি আনায় অভিজ্ঞ জাপানী নির্মাতা হোন্ডা। ১৯৫৯ সালে প্রতিষ্ঠিত কোম্পানীটি নতুন এক টেকনোলজী Honda riding Assist নিয়ে আসে। এটি নিজের ব্যালেন্স নিজে রাখতে পারে, আপনার পেছনে পেছনে অনুসরণ করতে পারে এটি, একেবারে কম গতিতেও ব্যালেন্সে সমস্যা হয় না।

6. Kawasaki Concept J

কাওয়াসাকি জে তিন চাকার দুর্দান্ত গাড়ি। কম গতিতে চাকা দুটি কাছে থাকে আবার উচ্চগতিতে দুরে যায়। Sports mode এ চাকাগুলো উপরে নিচে তুলে কর্ণারগুলো সুক্ষভাবে পার হতে সাহায্য করে। Comfort mode এ চাকার দুরর্ত বাড়িয়ে রালাক্সে চালাতে পারবেন।

ইয়ামাহা ট্রিনিটিসহ অনেকেই তিন চাকার দারুন সব বাইক বাজারে নিয়ে আসছে।

7. Hero ion

আমাদের পাসের দেশ ভারতে ব্র্যান্ড হিরো আয়ন নিয়ে এলো। Hubless Electric Traction motor টেকনোলজীর এই বাইকটির চাকা দেখলে অবাক হবেন। টায়ারের ভিতরেই মটরটি লুকিয়ে আছে।টাচ স্ক্রিন এবং ফিঙ্গার সেন্সরের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন, ৫ সেকেন্ডে ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত গতি উঠবে এটির। মাত্র আকবার চার্জে চলবে ৩০০ মিটার পর্যন্ত। আশা করা যায় ২০২০ সালে ভারতেই তৈরী হবে বাইকটি।

বন্ধুরা, কোন বাইকটি আপনাদের ভাল লেগেছে কমেন্টে জানাবেন। আর চ্যানেলে নতুন হলে সাবস্ক্রাইব করার অনুরোধ রইলো।