ডঃ জাকির নায়েক এর জিবনী

Saudi Award Goes to Muslim Televangelist Who Harshly Criticizes U.S. - The  New York Times

https://www.google.com/imgres?imgurl=https%3A%2F%2Fi.ytimg.com%2Fvi%2Fyuv3n50Unp0%2Fmaxresdefault.jpg&imgrefurl=https%3A%2F%2Fwww.youtube.com%2Fwatch%3Fv%3Dyuv3n50Unp0&tbnid=_7UlnkXf-x1l6M&vet=12ahUKEwi9kdfQ8MLtAhVzSHwKHYnlA2wQMygCegUIARDDAQ..i&docid=cBXNZB2qOn-bpM&w=1280&h=720&q=%E0%A6%A1%E0%A6%83%20%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%BF%E0%A6%B0%20%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%95&ved=2ahUKEwi9kdfQ8MLtAhVzSHwKHYnlA2wQMygCegUIARDDAQ

১।ডঃ জাকির নায়েকের জন্ম ও জন্মস্থান

ডঃ জাকির আবদুল করিম নায়েক এর জন্ম ১৮ অক্টোবর ১৯৬৫।হলেন একজন ভারতীয় ইসলামি চিন্তাবিদ, ধর্মপ্রচারক, বক্তা ও লেখক যিনি ইসলাম ও তুলনামূলক ধর্মত্বও বিষয়ে কাজ করেন।তিনি ইসলামিক রির্চাজ ফাউন্ডেশন নামক একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা যেটি পিস টিভি নেটওয়ার্ক পরিচালনা করে থাকে।যার মাধ্যমে তাঁর বক্তৃতা প্রায় দশ কোটি দর্শকের নিকট পৌঁছে যায়। তাকে তুলনামূলক ধর্মতত্ত্বের একজন বিশেষজ্ঞ অনুমেয়ভাবে ভারতের সালাফি মতাদর্শের অনুসারী সবচেয়ে প্রভাবশালী ব্যক্তি।

Zakir Naik exclusive interview: 'Won't come back to India if BJP is in  power' - The Week

টেলিভিশনভিত্তিক-ধর্মপ্রচারণার রকস্টার এবং আধুনিক ইসলামের একজন পৃষ্ঠপোষক।এবং পৃথিবীর শীর্ষস্থানীয় ইসলাম ধর্মপ্রচারক বলা হয়ে থাকে। হু ইসলামি ধর্মপ্রচারকদের সাথে তার ভিন্নতা হল, তার বক্তৃতাগুলো পারস্পারিক আলাপচারিতা ও প্রশ্নোত্তরভিত্তিক যা তিনি আরবি কিংবা উর্দুতে নয় বরং ইংরেজি ভাষায় প্রদান করেন।এবং অধিকাংশ সময়েই তিনি ঐতিহ্যগত আলখাল্লার পরিবর্তে স্যুট-টাই পরিধান করে থাকেন।পেশাগত জীবনে তিনি একজন ডাক্তার হলেও ১৯৯১ সাল থেকে তিনি ইসলাম ধর্ম প্রচারে মনোনিবেশ করেন। ইসলাম এবং তুলনামূলক ধর্মের উপর তিনি তার বক্তৃতার বহু পুস্তিকা সংস্করণ প্রকাশ করেছেন। যদিও প্রকাশ্যে তিনি ইসলামে শ্রেণীবিভাজনকে অস্বীকার করে থাকেন, তবুও অনেকে তাকে মতাদর্শের সমর্থক বলে মনে করেন এবং অনেকে তাঁকে ওয়াহাবি মতবাদ প্রচারকারী একজন আমুল – সংস্কারিবাদী ইসলামিক টেলিভেগানিস্ট বা তহবিল সংগ্রহকারী টেলিভিশন ধর্মপ্রচারক” বলেও মনে করে থাকেন।বর্তমানে ভারত, কানাডা, যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশ তার ধর্মপ্রচার নিষিদ্ধ। বলা হয়ে থাকে যে, মুসলিম সম্প্রদায়ের বাইরের তুলনায় এর ভেতরেই তাঁর সমালোচকের সংখ্যা বেশি।

২।ডঃ জাকির নায়েকের ইসলামিক বক্তব্য

জাকির নায়েককে ফেরত চায় ভারত | বিশ্ব | DW | 18.06.2020

তিনি মুম্বাইয়ের সেন্ট পিটার্স হাই স্কুলের ছাত্র ছিলেন। এরপর তিনি কিশিনচাঁদ চেল্লারাম কলেজে ভর্তি হন। তিনি মেডিসিনের ওপর টোপিওয়ালা ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড নাইর হসপিটালে ভর্তি হন। অতঃপর, তিনি ইউনিভার্সিটি অফ মুম্বাই থেকে ব্যাচেলর অব মেডিসিন সার্জারি বা এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করেন।১৯৯১ সালে তিনি ইসলাম-ধর্ম প্রচারের কার্যক্রম শুরু করেন এবং আইআরএফ প্রতিষ্ঠা করেন। নায়েকের স্ত্রী, ফারহাত নায়েক, ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশনের নারীদের শাখায় কাজ করেন। ডাঃ জাকির বলেন তিনি আহমেদ দিদাতের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছেন, যার সাথে তিনি ১৯৮৭ সালে সাক্ষাত করেন।ডাঃ জাকিরকে অনেক সময় দিদাত প্লাস বলা হয় এই উপাধি দিদাত নিজে দেন।এছাড়াও তিনি মুম্বাইয়ের ইসলামিক ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এবং ইউনাইটেড ইসলামিক এইডের প্রতিষ্ঠাতা, যা দরিদ্র ও অসহায় মুসলিম তরুণ-তরুণীদের বৃত্তি প্রদান করে থাকে।

সালাত Pdf- By Dr Zakir Naik - Aazeen Of Islam

ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশনের ওয়েবসাইটে তাকে পিস টিভি নেটওয়ার্কের পৃষ্ঠপোষক ও আদর্শিক চালিকাশক্তি হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে।জাকির নায়েক ইসলাম ধর্ম সম্পর্কিত অনেক বিষয়ে বক্তব্য দিয়েছেন ও বিতর্ক করেছেন। তার আলোচনা ইংরেজিতে রেকর্ড করা হয়ে থাকে এবং সপ্তাহ শেষে মুম্বাইয়ের মুসলিম অধ্যুষিত এলাকাগুলোর বিভিন্ন ক্যাবল নেটওয়ার্কে এবং তার নিজস্ব প্রযোজনাধীন পিস টিভি চ্যানেলে সম্প্রচারিত হয়।তার অন্যতম বিখ্যাত বিতর্ক হয় ২০০০ সালের এপ্রিলে ‘বিজ্ঞানের আলোয় কুরআন ও বাইবেল’ বিষয়ে শিকাগোতে উইলিয়াম ক্যাম্বেলের সাথে। নভেম্বর ২০০৭ থেকে জাকির প্রতিবছর মুম্বাইতে সিয়নের সুমাইয়া গ্রাউন্ডে একটি ১০-দিনের শান্তি সম্মেলনের আয়োজন করে আসছেন। সেখানে নায়েকসহ আরও বিশজন ইসলামী বক্তা ইসলামের উপর বক্তব্য উপস্থাপন করে থাকেন।২০০৪ সালে তিনি অস্ট্রেলিয়া সফর করে। ২০০৬ সালে ওয়েলসে সফর করে বির্তকের জন্য। ২০১০ সালে যুক্তরাষ্ট্রে এবং কানাডায় নিষেধাষঙ্গা জানায়।২০১৪ সালে, নায়েক গাম্বিয়ার রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া জাম্মেহর আমন্ত্রণে গাম্বিয়া সফর করেন।গাম্বিয়ার ইমামদের সঙ্গে একটি ইসলামী আলোচনা সভায় অংশ নেন। জাকির বলেন তার লক্ষ্য হচ্ছে শিক্ষিত মুসলমানরা যারা তাদের নিজ ধর্মকে ত্রুটিপূর্ণ, সেকেলে বলে মনে করেন।নায়েক ইসলামকে শ্রেষ্ঠ ধর্ম বলে দাবি করেন।

আমি মালয়েশিয়া হিজরত করেছি ডাঃ জাকির নায়েক। পড়ুন বিস্তারিত - Malaysia  Bangladeshi community

যা তিনি যুক্তি দিয়ে বহুবার প্রমাণ করেছেন। জাকির গনমাধ্যেম সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার এবং বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ানক অস্ত্র হিসেবে সংজ্ঞায়িত করেন যা সাদাকে কালো এবং খলনায়ককে নায়কে পরিণত করে। ২০১৯ সালের ১১ই মে ভারতের দ্যা উইক সাময়িকীর একটি সাক্ষাৎকারে নায়েক নরেন্দ্র মোদি ও তার দল বিজেপির সমালোচনা করে বলেন, এরা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে এবং তার জনপ্রিয়তার কারণে তাকে লক্ষবস্তু বানানো হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, মোদি ক্ষমতায় থাকলে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি দেশে ফিরবেন না, যেমনটা হিজরতের সময় নবী মুহাম্মদ করেছিলেন। মুসলিম বিশ্বে জনপ্রিয় হলেও জাকির নায়েক তার বক্তব্য ও মতের জন্য বিভিন্ন স্থানে সমালোচিত হয়েছেন। তিনি একজন মহান মানুষ হিসেবে মানুষদের আর্দেশ উপদেশ দিয়ে গিয়েছেন এবং এমন করেই তিনি মানুষের জন্য কাজ করবেন।

Leave a Comment