কানকে সুস্থ রাখার উপায়

বিভিন্ন কারণে শিশু থেকে শুরু করে যেকোনো... - জিজ্ঞাসা ও সমাধান | Facebook

আমাদের কানের ভেতর যে ময়লা দেখা যায় তা হলো সাধারনত ধুলাবালি থেকে প্রবেশ করে।আর এটি আমাদের পরিষ্কার করতে হয় না। কারন কানের ভেতরের অংশকে আমরা বলে থাকি বহিঃকর্ন। এটি প্রতিদিন এক মিলিমিটার করে চামড়া বাহিরের দিকে বরিয়ে আসতে থাকে।এবং কোনো কারনে যদি কানের মধ্যে ময়লা জমেই যায় এবং বন্ধ হয়ে যায় তাহলে কানের মধ্যে অলিবয়েল দিলে কানের মধ্যে ময়লা আস্তে আস্তে বেরিয়ে আসতে থাকে।এরপরেও যদি বের না হয় তাহলে জনডিসের মাধ্যেমে বের করে থাকি।কিন্তু সাভাবিক ভাবে কানের ভিতর কিছু গুকানো ঠিক না।

কানে ব্যথা সমাধানের উপায় জেনে নিন | NTV Online

আমরা অনেকেই রয়েছি কানের ভিতর পাখির পালক, সেফটিপিন অথবা তুলার কাঠি দিয়ে পরিষ্কার করার চেষ্টা করে থাকি।এতে দেখা যায় বিপরিত ঘটনা ঘটে থাকে। কানের পাতলা চামরা ক্ষতিগ্রস্ত হতে দেখা যায়। যার ফলে আরো বড় ধরনের সমস্যা তৈতি হতে পারে।তাই আমাদের উচিত কোনো সমস্যা দিলে কানে নিজে কিছু না করে ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহন করতে হবে। কানকে আমরা সাধারনত ৩ ভাগে বিবক্ত করে থাকি। বহিঃকর্ন, মধ্যে কর্ন, এবং অন্ত কর্ন।বহিঃকর্ন এবং মধ্যে কর্ন কারনেই কানে সমস্যা সাধারনত কানের ব্যাথার তৈরি হয়। কানে ব্যাথা হওয়ার কারন হচ্ছে কানে প্রদাহ জনিত ব্যাথা। বিভিন্ন ব্যাক্টেরিয়ার কারনে ব্যাথা।

মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখার উপায়

এছাড়া কানে পুজ হয়। কানে ফ্যাঙ্গাস জনিত কারনে কাছে প্রচন্ড ব্যাথা হয়।এগুলো সাধারনত শিশুদের বেশি দেখা দেয়।দেখা যায় শিশুরা রাতে অনেক কান্না করতে থাকে। কানের মধ্যেকর্নের প্রদাহ কারনেই এই সমস্যাটি দেখা যায়। এছাড়াও শিশুদের ক্ষেএে যে ঠান্ডা হয়ে থাকে সেই ঠান্ডা থেকে আস্তে আস্তে কান থেকে পানি পড়তে থাকে। । এখান থেকেই কানে ব্যাথা সৃষ্টি হয়।এছাড়াও মাথায় আগাত পেলে সেখান থেকেও কান পর্যন্ত ব্যাথা চলে আসে।এছাড়াও আমাদের কানের আসে পাশে জায়গা থেকেও আমাদের কানে ব্যাথা হয়ে থাকে।এবং গলায় ইনফেকশন ও টনসিল হতে পারে।এছাড়াও কানের মধ্যে সম্পর্ক থাকে যেসব অঙ্গের জীব, মারি দাত এবং চোয়াল ইত্যাদির কারনেই দাতের সমস্যা তৈরি হতে পারে।

গুজবের ফায়দা, প্রিয়া গং এবং কিছু কথা

আবার আমরা যেটাকে বলি আক্কেল দাত।আমাদের সাধারনত এটি ১৬ – ২০ বছর বয়সে ওঠতে দেখা যায়।তাহলে এটা যদি খুব বেশি ব্যাথা দেখা যায় সেটার মাধ্যেমে কান ব্যাথা প্রকাশ করে।আরার আমাদের ঘারে যে মেরুদন্ড রয়েছে সে মেরুডন্ডর বেতরে যে ডিস্ক করেছে সেখানে যদি কোনো প্রকার ক্ষতি হয়ে থাকে তাহলে সেই ব্যাথার কারনে কানে ব্যাথা প্রকাশ হতে পারে।এছাড়াও যদি কানে কোনো কিছু প্রবেশ করিয়ে কানকে ক্ষতিগ্রস্থ করা ঠিক না। আমাদের আগে যানতে হবে কান পরিষ্কার করা ঠিক না। ডাক্তার দারা পরিক্ষিত যে কানকে পরিষ্কার করার কোনে দরকার নেই।

কানে খোঁচাখুঁচি বিলকুল নয়, খোল পরিষ্কারের সহজ রাস্তা বললেন বিশেষজ্ঞরা -  Goodhealth

কারন কানকে আল্লাহ তায়ালা এমন করে সৃষ্টি করেছেন যে কান নিজের কান জিজেই পরিষ্কার করেন।কানে একধরনের তৈলাক্ত পর্দাথ জমা হয়। সেগুলোকে যদি আমরা সাধারনত যে কটমবার দিয়ে পরিষ্কার করতে চাই। এতে আমাদের কানের ময়লা যেগুলো থাকে সেগুলোকে ঠেলে আরো পিছে নিয়ে যায়। এতে ময়লাগুলো কানের পিছে জমা হতে থাকে।সেগুলো আর কানের বাহিরে আসতে পারে না। এগুলো ভিতরে জমে শক্ত হয়ে কানপর ভিতর আরো ক্ষতি করতে থাকে। এতে কানের জন্য কোনো উপকার হতে পারে না বরং এটি আরো সমস্যা তৈরি করবে কানে।আর যদি অন্য কোনো রোগের কারনে কানে সমস্যার দেখা দেয় তাহলে আমাদের উচিত সেই রোগটি দেখিয়ে খুব দ্রুত সারিয়ে নেওয়া উচিত। তাহলে আমরা কানকে সর্বদা সুস্থ রাখতে পারবো।কানের মধ্যে কোনো সমস্যা দেখা গেলে আমরা বাহিরে কাওকে কান দেখানো ঠিক না। কারন তারা ময়লাযুক্ত জিনিস দিয়ে কানের ভেতর প্রবেশ করিরে পরিষ্কার করবে। এর ফলে কানে ময়লা আরো প্রবেশ করে এবং কানে ফাঙ্গাস তৈরি হয়।এর ফলে কানের ব্যাথা আরো বাড়তে পারে।তাই আমাদের উচিত ডাক্তারের কাছে গিয়ে এই কানের সমস্যার কথা বলা। এবং ডাক্তাররা কানে ড্রফ দ্বারা কানের ময়লা এবং উন্নত যন্ত্র দ্বারা পরিক্ষার মাধ্যেমে কানের সমস্যা দূর করতে সক্ষম হয়।আমাদের সাধারনত যেসকল সমস্যার সৃষ্টি হতে হয় কানের জন্য সেসকল সমস্যার সমাধান বলা হয়েছে। আমরা এগুলো মেনে চললেই আমরা এই কানের সমস্যার থেকে দ্রুত মুক্তি পাবো।