ধারাবাহিক কার্টুন রঙ্গ-৩-প্রযুক্তির অতিরিক্ত ব্যাবহার

প্রযুক্তির নতুন নতুন পণ্য ব্যাবহারের সাথে সাথে বৃদ্ধি পাচ্ছে এদের অনিয়মিত ব্যাবহার। কেউ কেউ এই সব প্রযুক্তি পন্য ব্যাবহারের আধিক্যকের কারনে পড়েন নানান রকমের ঝামেলায়। আজকাল ছোট ছোট শিশুরাও মোবাইল, ইন্টারনেট সহ নতুন নতুন প্রযুক্তির সাথে কিভিবে জরিয়ে যাচ্ছে তার উপর দুইটি কমিকস দেখতে পাবেন। এরকম কোন অনাকংক্ষিত কোন পরিবেশে পড়েন কিনা তার উপরে মতামত দিন।

কমিক্স-১

ধারাবাহিক কমিকসঃ পর্ব এক-প্রযুক্তির অতিরিক্ত ব্যাবহার

কমিক্স-২

ধারাবাহিক কমিকসঃ পর্ব এক-প্রযুক্তির অতিরিক্ত ব্যাবহার

আরও দেখুনঃ

কমিকস দুইটি যথাক্রমে মেসেবলওয়েবডিজাইনারডিপড থেকে অনুদিত

16 thoughts on “ধারাবাহিক কার্টুন রঙ্গ-৩-প্রযুক্তির অতিরিক্ত ব্যাবহার”

    1. @তওহীদুল ইসলাম, কার্টুন তৈরী করতে আমি তেমন দক্ষ না, অথচ নিয়মিত এই পর্বটি চালিয়ে যাওয়া দরকার। আপনি/আপনারা যদি এই ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে সহযোগিতা করেন তাহলে কৃতজ্ঞ থাকবো।

  1. হা হা হা! আমার একটা বন্ধু এরকম গানের সমঝদার। হেড ফোন লাগিয়ে গান শুনতে শুনতে একবার হুজুর স্যারের সাথে ধাক্কা লাগে! ভাগ্য ভালো আমি দূরে ছিলাম।

    1. আপনাদের এই সাইটিট খুবই ভালো এটা একটা শিক্ষনীয় ওয়েবসাইট আরোও নতুন কাটুন চাই

      1. @suman Ghosh, আমি নিজে কার্টুন বানাতে চেয়েছিলাম। কিন্তু পারি নাই। সবাইকে দিয়ে তো সব কাজ হয় না। তারপর ইরেজী ওয়েবসাইটে গিয়ে তাদের তৈরী করা কাটুর্ন এডিট করেই প্রকাশ করলাম।
        তবে ভাল আইডিয় পেলে আরও নতুন নতুন কার্টুন বানানোর চেষ্ট করবো। তবে বেশি হাসাহাসি করলে পড়ালেখার ক্ষতি হবে কিন্তু…. 😀 এবার রাখি, স্কুলের সময় হয়ে গেছে… অহ .. না, অফিসের সময় হয়ে গেছে।

          1. @শিবলী, মেইল পেয়েছি। আজ রাতে চেষ্টা করবো। কার্টুন বানানোর এপ্লিকেশন দিয়ে তো কয়েক ঘন্টায়ই বানানো যায়। http://tutorialbd.com/bn/?p=5076
            আপনি একটা বানানোর চেষ্টা করতে পারেন। প্রতি সপ্তাহে একটা করে কাটুর্ন পোষ্ট বানানো দরকার।

          2. @শিবলী, আমি phtoshop কিংবা illustrator এ বানানোর কথা বলছিলাম।
            আচ্ছা মহবুব ভাই, এমন একটা পেজ তৈরি করা যায় না। যেখানে টিউটরিয়াল বিডির পাঠকরা নিজেদের সমস্যা আমাদের জানাতে পারবে আর আমরা ঐ বিষয় নিয়ে পোষ্ট কারার চেষ্টা করবো। কিংবা ঐ খানেই সমাধান দেব।

          3. @শিবলী, আসলে আমি চেষ্টা করি সবগুলো মন্তব্যের উত্তর দিতে। পাঠকও বোঝে যে এখানে মন্তব্যে সমস্যার কথা লিখলে অনেকেই সমাধান দিতে আসে। আর তাই কমেন্ট করে। এখন কথা হলো এই সাইটে ভিন্ন একটি পাতা রাখার কথা বলছেন। এ জন্য আলাদা একটা প্লাটফর্ম দরকার। একটা সাইট দরকার, শুধু প্রশ্ন আর উত্তর।

            আলাদা পাতা রাখাটা বড় কথা না। আলাদা ওয়েব সাইট বানানোটা বড় কথা না। সার্ভিস দেওয়া যাবে কিনা সেটাই বড় কথা।

            বেশ কিছু দিন আগে এক ছেলে এমন একটা সাইট বানানোর কথাই চিন্তা করে ফেসবুকে আমাকে জানিয়েছিল। তারপর তাকে বললাম ২৪ ঘন্টা সার্ভিস দিতে পারবেন কিনা? পাঁচ মিনিটে উত্তর দিতে পারবেন কিনা। অনেক লোককে একত্রিত করতে পারবেন কিনা? প্রশ্নকয়টির উত্তর ছিল “না”। তখন আমি বললাম সাইটটা না বানানোই ভাল।

            এখন সকল পাঠকের মতামতের উত্তর দিতে পারলে সবাই বুঝে যাবে যে এখানে একটা কমেন্ট করলেই সমাধান হবে। আপাততঃ এভাবেই চলুক। যাদের সমস্যা আছে তারা মতামতে বলুতে পারে। পরবর্তিতে আরও উন্নত কিছু করা যায় কিনা ভেবে দেখা যাবে।

          4. @টিউটো, অনেক ধন্যবাদ মাহবুব ভাই। ব্যাপারটা এ ভাবে চিন্তা করি নাই। তবে আপনি যেটা বলছেন সেটা হয় তো সম্ভব হবে। আমাদের টিউটরিয়াল বিডির আরও সদস্য বাড়ার সাথে সাথে।

Comments are closed.