ওয়েব কনটেন্ট তৈরীতে এলি-গ্রের উপদেশমালা (পর্ব-১)

বেশ আগে থেকেই টিউটোরিয়ালবিডিতে ব্লগিং বিভাগটি চালু আছে । সেখানে লেখালেখির বিভিন্ন দিক সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। তবে ব্লগিং ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের কনটেন্ট তৈরী করার দরকার হতে পারে। বাংলাদেশে ওয়েবে বাংলা লেখকদের বেশিভাগই ব্লগ লেখা দিয়ে শুরু হওয়ায় ব্লগ ছাড়া কনটেন্টের ধারাকে আলাদা করতে পারেন না অনেকেই। বিভিন্ন প্রয়োজনে আপনারওয়েবে বিভিন্ন ধারার কনটেন্ট দরকার হতে পারে। আর এর রয়েছে বেশ কিছু পদ্ধতি। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনে যেহেতু কনটেন্টের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে তাই অনেক সময় বিভিন্ন ওয়েবের জন্যও কনটেন্ট তৈরীর দরকার হতে পারে।

আমি নিজে ব্যক্তিগত ব্লগ লিখে বাংলা ব্লগে প্রবেশ করি। পরবর্তিতে টিউটোরিয়ালবিডির জন্য যখন লিখতে শুরু করি তখন বিষয়টা ভিন্ন। ব্যক্তিগত ব্লগে নিজেকে নিয়ে অনেক কথা বলা যায়। আর সেইভাবেই কথা বলা শুরু। প্রফেশনাল কাজে কোথাও কি কি কথা বলা যাবে বা যাবে না সেই বিষয়গুলো তখনো শেখা হয় নি। একটি ওয়েব কনটেন্টের ভাষাটি সেই ওয়েবসাইটের ধরন অনুসারে হতে হবে। একটি প্রফেশনাল সার্ভিস সাইটের জন্য আপনি যদি নিজের কথা মিশিয়ে বলতে থাকেন তাহলে তা বেমানান লাগবে। আবার আমি এখানে যেভাবে অতিরিক্ত কথা গুলো বলছি সেটা সব জায়গায় বলাও ঠিক না।

কিছুদিন আগে ওয়েবের ভবিষ্যত নিয়ে স্ম্যাশিং ম্যাগাজিনের একটি আটির্কেলে বলা হয়েছিল,

ভবিষ্যতের ওয়েবে তারাই নেতৃত্ব দিবে যারা ভাল কনটেন্ট তৈরী করতে পারবে।

আর সেই কনটেন্ট তৈরীর নির্দেশনামূলক আলোচনা করেছেন এলি গ্রে। আমি তার ও আমার নিজের বক্তব্যকে এলোমেলোভাবে এখানে উপস্থাপন করার চেষ্টা করবো।

মূলতঃ কোন কনটেন্ট তৈরীর আগে আপনাকে বেশ কিছু জিনিস ভেবে নিতে হবে। এটা যদি সাধারন ব্যক্তিগত ব্লগ হয় তাহলে অনেক কিছুই ভাবার দরকার নাও হতে পারে। তবে বেশ কিছু জিনিস অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে।

  • ১. কনটেন্টটি কি কাজে ব্যবহৃত হবে
  • ২. কারা এর পাঠক
  • ৩. মূল বিষয়টি কি?

অনেক সময় পাঠক মূল কথাটি বুঝতে পারেন না। আবার অনেক সময় মূলবিষয় থেকে দূরে সরে যায় মূল লেখাটি। তাই এ বেষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো

১. কনটেন্টটি কি কাজে ব্যবহৃত হবে

প্রো ব্লগারের একটি লেখায় পরেছিলাম-“আপনার লেখাটি হবে একটি আইসক্রিমের মতো। পাঠক পড়া শুরু করলে শেষ করে ছাড়বে। মুখে দিলে সহজে পেটে চলে যাবে।” তার মানে এটি এমন কঠোর কিছু হবে না যা কঠিন কিছু অতি সহজ সুন্দর ও মানানসই আকারে প্রকাশ করতে হবে। ওয়েবের কনটেন্ট বিভিন্ন ভাবে ব্যবহৃত হয়। একটি ই-কমাসের্র সাইটে প্রবেশ করলেই পণ্যটির ছবি, নাম ও মূল্য তালিকা চোখে ভেসে ওঠে যা ব্লগে দেখা যায় না। আবার পত্রিকার ওয়েবে বিভিন্ন ধরনের সংবাদের একটি অংশ প্রধান পাতায় দেখতে পাবেন। সামাজিক নেটওয়ার্ক সাইটের দিকে তাকিয়ে দেখুন। বিষয়টি একেবারেই আলাদা। তারা মূলতঃ কানেকশন ও সময় সাপেক্ষে জিনিসটির প্রাধান্য সৃষ্টি করে। ফেসবুকে কোন একটি ইভেন্ট চলার সময় সব আমন্ত্রিত অতিথির প্রধান পাতায় সেটি ভেসে ওঠে। এটা একটি প্রয়োজনীয় ও লক্ষ্যনীয় দিক। আর সেইভাবে কনটেন্ট তৈরী ও প্রকাশ করতে হয়। এখানে রয়েছে- বেশ কিছু জটিলতম বিষয়ের মিলন মেলা। ওয়েব কনটেন্ট স্ট্র্যাটেজির এই ডায়াগ্রামটি দেখুন। বেশ কিছু জিনিস নিয়েই আপনাকে গবেষণা করতে হতে পারে।

২. মূল বিষয়ঃ

মূলবিষয়টিকে ছাড়িয়ে গিয়ে ভিন্ন বক্তব্যকে এগিয়ে যেতে দেওয়া যাবে না। কনটেন্টে অবশ্য মূল বিষয়ের প্রভাব থাকবে। ছবি বা ভিডিও বলুন আর ওয়েব ডিজাইনের  নেভিগেশন  বা মেনু সব জায়গায় মৌলিক বিষয়টিকে এগিয়ে নিতে হবে। যদি কনটেন্টটি কোন খবর হয়ে থাকে তাহলে প্রথমেই ভনিতা না করে মূল খবরটি প্রকাশ করতে হবে। তার পর এটি নিয়ে মজার আলাপ শুরু করে দিতে দোষ নাই।

আবার বড় কোন বিষয়ে গভীর আলোচনার বিষয়টিকে ভাগ করা গেলে আগেই পয়েন্ট আকারে বলে দিবেন কি বলতে চাইতেছেন। এতে করে পাঠকের দুইটি সুবিধা হবে- ১. পাঠক প্রস্তুত হবে বিষয়টি পড়ার জন্য । সে যদি বিষয়টি পছন্দ না করেন তাহলে বিদায় নিয়ে চলে যাবেন- এটা তার অধিকার। ২. পাঠক কোন কোন অংশ জানতে চাইলে খুজে সেই অংশটি পড়ে নেবে। কোন কিছু বিক্রি করতে চাইলে ছবি ও দামটা গুরুত্বপূর্ণ। ভিডিও কনটেন্টের ক্ষেত্রে ইউজারের ইন্টারনেট স্পিডের কথা ভেবে শুরু করতে পারেন।

৩. পাঠক/শ্রোতার চাহিদা

পাঠক আপনার কাছে কিছু চায়। ধারাবাহিকবাবে লেখা লেখি কররে বিষয়টা সহজে বুঝতে পারতেন। আবার আপনার কনটেন্টও কিছু কিছু চাহিদা সৃষ্টি কতে পারে। আপনি কি সেই চাহিদার প্রতি দৃষ্টি দিচ্ছেন?

ওয়েবে ফিডব্যাক আংশটি বা কমেন্ট সেকশনের ব্যবহারে অনেকটা চাহিদা পূরণে সুবিধা হয়। আবার একই রকম কনটেন্ট ও লিংকের মাধ্যমেও কাজটি হতে পারে।

পরবর্তিতে আরো আলোচনা করা হবে। সাথে থাকুন। ভাল থাকুন।

3 thoughts on “ওয়েব কনটেন্ট তৈরীতে এলি-গ্রের উপদেশমালা (পর্ব-১)”

  1. অসাধারণ একটা পোস্ট মাহবুব ভাই… স্ম্যাশিং ম্যাগাজিনের কথাটা আর প্রোব্লগারের ড্যারেন রোসের কথাটা আমার কাছে সেরকম লেগেছে…

Comments are closed.